Skip to content

প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ বেকারদের দিচ্ছেন ৫ লক্ষ্য টাকা ঋণ

প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ মূলত বেকার এবং শিক্ষিত যুবকদের কর্মসংস্থান তৈরি করার লক্ষে দেওয়া হয়। আপনি বেকার তবে আপনার আছে শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং সেই সাথে আপনি সরকারি ভাবে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত তাহলে আপনাকে দেওয়া হবে ৫ লক্ষ্য টাকা পর্যন্ত লোন, এই লোন নিয়ে আপনি বিজনেস শুরু করতে পারবেন। এই লোন পাওয়ার জন্য আপনার খুব বেশি ডকুমেন্টের প্রয়োজন হবেনা। 

প্রধানমন্ত্রী লোন পাওয়ার জন্য কি কি ডকুমেন্ট প্রয়োজন হয়? কি কি যোগ্যতা থাকতে হয়? কোন কোন খ্যাঁতে ঋণ দেওয়া হয়? সব জানতে পারবেন এই পোষ্ট থেকে। আপনি যদি একটি সহজ লোন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লোন নিতে চান তাহলে এই পোষ্ট আপনার জন্য খুই গুরুত্বপূর্ণ। 

প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ পেতে যোগ্যতা

সকল ব্যাংক এবং এনজিও থেকে লোন নিতে হলে অনেক যোগ্যতার থাকার প্রয়োজন হয়, যেটা আমাদের সবচেয়ে বেশি বুগায় তা হলো আপনার মাসিক ইনকাম, অন্য যেকোন ব্যাংক থেকে লোন নিতে হলে মাসিক ২০-৩০ হাজার টাকা ইনকাম না হলে লোন দেওয়া হয়না। তবে প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশএর ক্ষেত্রে আপনাদের কোন ইনকাম থাকার দরকার নেই। 

বরং আপনার যদি ইনকাম থাকে তাহলে আপনাকে এই লোন দেওয়া হবেনা, এই লোন পেতে হলে অবশ্যই আপনাকে বেকার হতে হবে। 

এই লোনের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো আপনাকে অবশ্যই শিক্ষিত হতে হবে এবং সেই সাথে থাকতে হবে প্রশিক্ষনের সার্টিফিকেট।

চলোন দেখে নেওয়া যাক আরও কি কি যোগ্যতা থাকা লাগবে প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ পাওয়ার জন্য। 

  • আবেদনকারীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে। 
  • স্থায়ি বাসিন্ধা হতে হবে। 
  • আপনি যেই জন্য লোন নিবেন সেই কাজে আপনাকে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত হতে হবে, এবং প্রশিক্ষনের সার্টিফিকেট থাকতে হবে। 
  • আবেদনকারীর বয়স ১৮ বছর থেকে ৩৪ বছর মধ্যে থাকতে হবে। 
  • একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করার মত যোগ্যতা আপনার থাকতে হবে। 
  • অন্য কোন ব্যাংকে ঋণ খেলাপি হলে লোন পাবেন না। 
  • একজন গ্যাঁড়ান্টার লাগবে যার ঋণ পরিশোধ করার মত সম্পত্তি আছে। 

প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ এর বৈশিষ্ট্য

  • প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ সর্বোচ্ছ ৫ লক্ষ্য টাকা ঋণ প্রধান করে। 
  • প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ এর সুদের হাঁর মাত্র ৯%
  • প্রধানমন্ত্রী লোন আপনি ৫ বছরে পরিশোধ করতে পারবেন। 

প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ এর লোন পেতে ডকুমেন্ট

  • আবেদনকারী ও জামিনদারের সাক্ষর করা দিপি নোট। 
  • আপনার জমির দলিল কমা দিতে হবে।
  • আবেদনকারী ও জামিনদারের ভোটার আইডি কার্ড কপি দিতে হবে। 
  • দুজনের পাসপোর্ট সাইজ ছবি দিতে হবে। 

উপসংহার

প্রধানমন্ত্রী লোন বাংলাদেশ সম্পর্কে আমরা আলোচনা করেছি, আশা করি আপনারা এই পোষ্ট থেকে উপকৃত হবে। 

তবে লোন দেওয়া নেওয়া এবং সাক্ষী দেওয়া হারাম, তাই আপনাদের লোন নেওয়ার জন্য নিরউৎসাহিত করছি। লোন না নিয়ে কিছু করার চেষ্টা করুন সেটা হোক ছোট কোন ভালো কাজ।

লোন সংক্রান্ত আরও পোষ্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *